নিষেধাজ্ঞার কবলে “মুখোশ মানুষ” ছবি

নিষেধাজ্ঞার কবলে “মুখোশ মানুষ” ছবি

দ্য ফেক সিনেমার সকল কার্যক্রম বন্ধ রাখতে অন্তর্বর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞা  জারি করেছে আদালত। একই সঙ্গে আদালতের এই নোটিশ পাওয়ার সাত দিনের মধ্যে সিনেমার পরিচালক ও প্রয়োজককে কারণ দর্শাতেও বলা হয়েছে। গত ২৬ মে  এস এস কুদ্দুস জামানের আদালত এ আদেশ দেন।মামলার বিবরণে জানা গেছে, মুখোশ মানুষ নামে একটি খণ্ডকালীন নাটক নির্মাণের জন্য উদ্যোগ নেন প্ল্যাসিড পল রোবেরো’র বিবেক মিডিয়া ও জাপানের আরেকটি প্রতিষ্ঠান জাপান-বাংলাদেশ মিডিয়া লিমিটেড।নাটকটি পরিচালনার জন্য এই মামলার ১ নম্বর বিবাদী ইয়াসির আরাফাত জুয়েল ওই দুই মিডিয়ার সাথে চুক্তিবদ্ধ হন। নাটকটি নির্মাণে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ দেন বিবেক মিডিয়া ও জাপান-বাংলাদেশ মিডিয়া লিমিটেড। অথচ পরিচালক ইয়াসির আরাফাত জুয়েল এই নাটকটির কার্যক্রম অসমাপ্ত রেখেই মুখোশ মানুষ এর গল্প দিয়েই বে আইনি ভাবে দ্য ফেক নামে একটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন।

muk-ddএই চলচ্চিত্রটি নির্মাণের জন্য যাবতীয় ব্যয়ভার বহন করেন প্রযোজক একেএম সামসোদ্দাহা পাটোয়ারী। যিনি এই মামলার দুই নম্বর বিবাদী।  চলতি মাসেই এই চলচ্চিত্রটি বাজারে ছাড়ারও পরিকল্পনা ছিল তাদের।এমন পরিস্থিতিতে প্ল্যাসিড পল রোবেরো চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে  ঢাকা জেলা জজ আদালতে এই চলচ্চিত্রকে অবৈধ ঘোষণা ও এর সকল কার্যক্রম বন্ধে নিষেধাজ্ঞা  চেয়ে মামলা দায়ের করেন। যার নম্বর ১২৮/২০১৬। আদালত নিষেধাজ্ঞা দরখাস্ত শুনানি না করেই ইহা তার গত ২৮ এপ্রিল তারিখের আদেশ দ্বারা বাদ দেন।সেই আদেশের বিরুদ্ধে বাদীগন ঢাকা জেলা জজ আদালতে একটি মিস আপিল দায়ের করেন। যার নম্বর ১১০/২০১৬। এরই প্রেক্ষিতে আদালত অন্তর্বর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞার আদেশ দেন।
এ বিষয়ে বিবেক মিডিয়ার কর্ণধার প্ল্যাসিড পল রোবেরো বলেন, মুখোশ মানুষ নামে একটি খণ্ডকালীন নাটক পরিচালনা জন্য এই মামলার প্রথম বিবাদী ইয়াসির আরাফাত জুয়েল আমাদের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হন।কিছু দিন নাটকের কাজ করার পর পরিচালক জুয়েল জানান যে, তিনি বেশী কাজ করে ফেলেছেন। আরও কিছু টাকা খরচ করে এটা টেলিফিল্ম আকারে নির্মাণের দাবি জানান।
এরপর বিবেক মিডিয়া ও জাপান-বাংলাদেশ মিডিয়া লিমিটেড বিষয়টি নিয়ে আলোচনায় বসেন। এরপর টেলিফিল্ম আকারে নির্মাণের জন্য আরও কিছু টাকা বিনিয়োগ করে এ দুই প্রতিষ্ঠান। পরে পরিচালক এটাকে চলচ্চিত্র আকারে নির্মাণের দাবি জানায়।তিনি বলেন, সব মিলিয়ে এটার পেছনে ১৫-১৬ লক্ষ্য টাকার মতো বিনিয়োগ করা হয়েছে। কিন্তু পরিচালক জুয়েল মুখোশ মানুষ গল্পটি অবলম্বনে দ্য ফেক নামে একটি চলচ্চিত্র বানান। একেএম সামসোদ্দাহা পাটোয়ারী নামে একজন এটি প্রযোজনা করেছেন। এতে আমারা বিশাল ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছি এমন পরিস্থিতিতে আমরা আদালতের দ্বারস্থ হতে বাধ্য হয়েছি। আদালত এটার সকল কার্যক্রমের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।

Check Also

Kishor

কিশোর কনার নতুন গান ইউটিউবে ‘খুশির দিন’

ইউটিউবে প্রকাশ হয়েছে এই প্রজন্মের জনপ্রিয় কন্ঠ শিল্পী কনা ও কিশোরের কণ্ঠে গাওয়া নতুন গান …