নেপাল বাংলাদেশ যৌথ আয়োজনে আমিনুল আশরাফের নৃত্য পরিবেশনা !

অরণ্য শোয়েব : নেপালের সঙ্গে বাংলাদেশের ঐতিহ্য আর সংস্কৃতিতে কিছুটা মিল আছে। আবার দুই দেশের সাংস্কৃতিক পরিবেশনার মধ্যে কিছু পদ্ধতিগত পার্থক্য আছে। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে গত ১২ই জুলাই বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ও নেপালের সমসাময়িক শিল্পমাধ্যমের সম্মিলন ঘটেছে। এখানে দুই দেশের সংস্কৃতির মিল আর অমিলের বিষয়টি স্পষ্ট হয়েছে।

এই আয়োজনের উদ্দেশ্য, দুই দেশের বন্ধুত্ব। বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের সময় থেকেই বন্ধু হয়ে পাশে আছে নেপাল। এখনো দুই দেশের বন্ধুত্ব অক্ষুণ্ন। নেপাল দূতাবাস গত ১৩ই জুলাই বৃহস্পতিবার সেই বন্ধুত্ব আবারও উদ্‌যাপন করেছে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে। দুই দেশের ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক পরিবেশনার এই আয়োজন করা হয় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় সংগীত, আবৃত্তি ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে।

মঞ্চের একপাশে প্রদীপ প্রজ্বালন করে আয়োজনের উদ্বোধন করেন নেপালের রাষ্ট্রদূত অধ্যাপক চুপ লাল ভূষাল ও ডেপুটি চিফ অব মিশন ধন বাহাদুর অলি। উদ্বোধনী পর্বের সংক্ষিপ্ত আনুষ্ঠানিকতার পর মুগ্ধ হওয়ার পালা। শুরুতেই নেপালের ঐতিহ্যবাহী কুমারী নৃত্য নিয়ে মঞ্চে আসেন সুশীলা থাপা। নৃত্যের ছন্দে তিনি তুলে ধরেন স্রষ্টার প্রতি আনুগত্য। পরে নেপালের দুই শিল্পী পরিবেশন করেন কউরা নৃত্য, টপ্পা নৃত্য, ভোজপুরি নৃত্য ও জাউর নৃত্য। এর মধ্যে কউরা নৃত্য মূলত নেপালের আদিবাসী নাচ, যে নৃত্যের ছন্দে শিল্পীরা তুলে আনেন নেপালের মাগার, গুরাং ও দূরা সম্প্রদায়ের বিভিন্ন আচার অনুষ্ঠান। আর টপ্পা নৃত্যে নেপালের মাগার, ছেত্রী ও ঠাকুরি সম্প্রদায়ের ঐতিহ্য তুলে ধরা হয়। ভোজপুরি নৃত্যে ভোজপুরিদের উৎসবের আনুষ্ঠানিকতা তুলে ধরেন শিল্পীরা। তবে দর্শকের কাছে সবচেয়ে আকর্ষণীয় ছিল জাউর নৃত্য। উপস্থাপনার আগে জানানো হয়, এটি নেপালের সবচেয়ে জনপ্রিয় নৃত্যধারার একটি। জাউর নৃত্যে শিল্পীরা তুলে ধরেন নেপালের স্থানীয় সংস্কৃতির বিভিন্ন দিক। মাদল, বাঁশি ও আঞ্চলিক বাদ্যযন্ত্রের সাহায্যে পরিবেশিত এ নৃত্য দর্শকদের দারুণ আনন্দ দেয়।

দুই দেশের বেশ কিছু শিল্পী অংশগ্রহণ করে এই নৃত্য অনুষ্ঠানে | তার মধ্যে কাদামাটি থিয়েটার কোরিওগ্রাফি স্কুল এর যৌথ কর্ণধার আমিনুল আশরাফ নৃত্য ছিল চোখে পড়ার মতো | বিশেষ করে ধন ধন্য পুস্প ভরা গানের মিউজিক এর সাথে নৃত্যভিনয় ছিল অসাধারণ |
অনুষ্ঠনের ব্যাপারে কথা হয় আমিনুল আশরাফ এর সাথে তিনি জানান , এক কথায় খুবই সুন্দর একটা অনুষ্ঠান করলাম | এবং নাচের ভিতর যখন দুই দেশের পতাকা আদান প্রদান করছিলাম সত্যি কিরকম যেন একটা অনুভূতি হচ্ছিলো যা বলে বুঝাতে পারছিলাম না কাউকে | চোখের কোনে জল আর দর্শকদের হাত তালি মঞ্চটা আরো শক্তিশালী করেছিল আমার |
দুই দেশের বন্ধুত্বটা আরো এগিয়ে যাক | নেপাল শিল্প-সংস্কৃতিতে সমৃদ্ধ একটি দেশ। বৃহস্পতিবার দেড় ঘণ্টার এ আয়োজনের মধ্য দিয়ে নেপালের শিল্প-সংস্কৃতির বৈচিত্র্যময় দিক যেমন ঢাকার দর্শকেরা জানতে পেরেছে, তেমনি দুই দেশের শিল্পীরা পারস্পরিক মতবিনিময়ের সুযোগ পেয়েছে | এ ধরনের আয়োজন দুই দেশের শিল্প-সংস্কৃতির উন্নয়ন আর বিকাশে সুদূরপ্রসারী ভূমিকা রাখবে আশা করছি |

Check Also

ক্ষুদে গানরাজ আবির’র প্রথম ভিডিও ‘চাই তোকে ফিরে’

মিডিয়া ভূবন২৪- ক্ষুদে গানরাজ শিল্পী আবির আহনাফ এর প্রথম মিউজিক ভিডিও ‘চাই তোকে ফিরে’। উল-আজহা …