মনজ বাহাদুরের স্বপ্ন ‘সুর নিকেতন’ একদিন পৌঁছাবে বাংলাদেশজুড়ে !


জ্যেষ্ঠ প্রতিনিধি অরণ্য শোয়েব : রাঙামাটি পাহাড়ের ঘেরা এক বনমালঞ্চ | চারিদিকে পাহাড় আর তার পাড় ঘেঁষে চলে গেছে ছোট ছোট খাল | যেদিকে চোখ যায় দেখা যায় রাঙামাটির অপরূপ সুন্দর্য্য | নীল নীলিমার ঈশ্বরের হাতে তৈরী এক গুচ্ছ সুন্দর্য্য | এই রাঙামাটির আরো সুন্দর করে পাহাড়ি গানে নাচে বিভিন্ন সম্প্রদায়গুলো তাদের নিজ নিজ ঐতিহ্য তুলে ধরে | তখন রাঙামাটি সুন্দর্যে পরিপূণ্য হয়ে ওঠে চারপাশ |
এর এরই মধ্যে এক গুচ্ছ স্বপ্ন নিয়ে আছেন মনজ বাহাদুর | তার প্রতিষ্ঠানের নাম ‘সুর নিকেতন ” ১৯৮২ সালে তার যাত্রা প্রায় ৩৬ বছর হয়ে এলো , রাঙামাটির জেলরোড বাহাদুরপাড়ায় এই মনোজ্ঞ গুণী সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মানুষটির স্থান | হাতে গোনা কয়েকজন ছেলে মেয়ে কে নিয়ে শুরু হয়ে ছিল তার এই প্রতিষ্ঠানটি ,আজ ৭০ এর উপরে আছে ছাত্রী-ছাত্রীর সংখ্যা | সুর নিকেতনে গান ,নাচ ,আবৃতি ,অভিনয় সহ সব শিক্ষা প্রদান করে |


মনজ বাহাদুর বিশ্বাস করেন, একদিন শুধু পাহাড়ের বুকে আটকে থাকবে না সারা দেশ জুড়ে ছড়িয়ে পরবে এই প্রতিষ্ঠানটির নাম ও তার কাজ | সুনাম কুড়াবে দেশ জুড়ে |
মনজ বাহাদুর শুধু মাত্র একজন প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার নয় তিনি একাধারে অভিনয় শিল্পী ,কবি .লেখক ,নাট্য নির্দেশক | ওনার মোট চারটি বই প্রকাশ হয় ,এর মধ্যে ‘পার্বত্য চট্রগ্রামের গুর্খা জনগোষ্ঠী’ অন্যতম এবং তার লেখা কাব্য গ্রন্থ ‘উদাসীন দীর্ঘ দুপুর ‘ বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল |


গুণী সাংস্কৃতিকবোদ্ধা মনজ বাহাদুরের সাথে কথা হলে তিনি জানান , অভিনয় গান শিল্পচর্চা এইগুলো শিখেছি পরিবার থেকে , বড় বোন গান শিখাতো এবং বাবা কে দেখতাম যাত্রাপালা করতো | সেখান থেকেই অভিনয় সাংস্কৃতিক অঙ্গন মনের অন্তরালে প্রবেশ করে | তখন থেকেই আঁকড়ে ধরি চর্চা করি মনের ভিতর ধারণ করি এই অঙ্গন কে | এবং পরে প্রতিষ্ঠা করি ‘সুর নিকেতন ‘ |
কতগুলো নাটক করছেন? নির্দেশনা দিয়েছেন ? বাহিরে প্রোগ্রাম করেন কি ? তা জিজ্ঞাসা করলে তিনি জানান , আমি এই পর্যন্ত ২০-৩০ টি নাটক নির্দেশনা দিয়েছি | এর মধ্যে অধিকাংশ আমার লেখা নাটক | এবং আমি পর্দায় ও কাজ করেছি বিখ্যাত পরিচালক দারাশিকো’র একটি নাটকেও আমি কাজ করেছি .নাটকটি এগারো পর্বের ছিল |
তাছাড়াও আমাদের শিল্পকলা একাডেমী তে নজরুল উৎসবে রবীন্দ্রনাথ উৎসবে আমরা যোগ দেই |


কি রকম সাহায্য সহযোগিতা পান ? মিডিয়া কভারেজ দেখা যায় না ? নিজের প্রতিষ্ঠানকে কোন অবস্থানে দেখতে চান ? তখন তিনি বলেন , এই পাহাড়ের মধ্যে আমাদের বিশেষ করে এই জনগোষ্ঠী কিছুটা পিছিয়ে আছে অন্যসব পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর চেয়ে | স্বাধীন ভাবে কাজ করলেও থাকে নানা প্রতিবন্ধকতা .গভীরে যেতে চাই না | তবে চাই সরকার সহ স্থানীয় সকল সাংস্কৃতিক প্রেমী মানুষদের ভালোবাসা আর এ নিয়েই এগিয়ে যেতে চাই সামনে |
মিডিয়া কভারেজ আসে না বললে ভুল হবে ,আসে তবে খুব কম | দেখা যায় বিভিন্ন চ্যানেল গুলো অন্যসব জনগোষ্ঠীর কভারেজ নেয় আমাদের চোখে পড়লেও আসল প্রতিভাবানদের উপর নজর খুব কম আসে | এই দিকটা একটু খারাপ লাগে | আসল সাংস্কৃতিকপ্রেমী প্রতিভাবান মানুষগুলো পাহাড়ের আনাচে কানাচে মধ্যে আছে | শুধু খুঁজে বের করে নিতে হয় |

শেষ দুই প্রশ্ন
১- আলাদিনের জাদুর চেরাগ পেলে কি করতেন ?
অবশ্যই সব মানুষগুলোর মধ্যে সাংস্কৃতিক প্রেম ঢুকিয়ে দিতাম | এবং জানাতাম সাংস্কৃতিক হোক প্রতিটা মানুষের মনের খোড়াক | আপনি মনে হয় জানেন না, আমি যেখানে থাকি সেই ঘরের পাশের একটি রুমে আমি আমার ছাত্র-ছাত্রীদের কে নিয়ে অনুশীলন করাই |

২-নিজেকে কোথায় দেখতে ইচ্ছে হয় ?
নিজেকে নয় ইচ্ছে হয় ‘সুর নিকেতন’কে দেশের উন্নত একটি সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলতে | এবং সুস্থ বিনোদন সাংস্কৃতিক প্রদান থাকবে যার লক্ষ্য |

সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ …………….
আপনাকে ধন্যবাদ ……………..

Check Also

এবার বিচারকের আসনে তাঁরা পাঁচজন

ওয়াসিম এমদাদ : বাংলাদেশী চলচ্চিত্রে শিল্পী সংগ্রহ কার্যক্রম “নতুন মুখের সন্ধানে-২০১৮” প্রতিযোগিতা শুরু হতে যাচ্ছে। …