Home / নতুন খবর / আব্দুল আজিজের কাছে ক্ষমা চাইলেন নায়ক বাপ্পি!

আব্দুল আজিজের কাছে ক্ষমা চাইলেন নায়ক বাপ্পি!

মিডিয়া ভূবন২৪– নায়ক ফারুকের নেতৃত্বে যৌথ প্রযোজনা বিরোধী আন্দোলনে অংশ নিয়েছিলেন বাপ্পি, সাইমন, রিয়াজ, ফেরদৌস, পপিসহ চলচ্চিত্র তারকারা। সেই আন্দোলনের ২ বছর পর ধীরে ধীরে নিজেদের অবস্থান বদলাচ্ছেন তারকারা। জনপ্রিয় চিত্রনায়ক বাপ্পি চৌধুরী ১৯ জানুয়ারি প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইলেন যৌথ প্রযোজনার পক্ষের প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আব্দুল আজিজের কাছে।

২০১৭ সালের ১৮ জুন যৌথ প্রযোজনার নামে ‘প্রতারণা’ বন্ধের দাবি জানিয়ে ১৮ সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত ‘বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিবার’এর ব্যানারে- মাঠে নামেন বাংলাদেশের অভিনয়শিল্পী, পরিচালক, প্রযোজক ও কলাকুশলীরা। বর্তমান সংসদ সদস্য চিত্রনায়ক ফারুকের নেতৃত্বে সেই আন্দোলনে বাপ্পি সাইমনসহ জনপ্রিয় তারকারা অংশ নেন।

যৌথ প্রযোজনায় সবচেয়ে বেশি ছবি নির্মাণ  করেছে  জাজ মাল্টিমিডিয়া। ফলে এই আন্দোলন মূলত জাজের বিরুদ্ধেই ছিল। জাজের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হওয়া সত্ত্বেও নায়ক বাপ্পি এ দিন জাজের বিরুদ্ধেই স্লোগান দিয়েছিলেন। ২০১৭ সালের  ১৮ জুন  আন্দোলনের সময় বাপ্পি  মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে বলেছিলেন, ‘কারও বিপক্ষে বা কোনও মহল-ব্যক্তিকে প্রতিপক্ষ করে নয়, এ আন্দোলন দেশের সংস্কৃতি ও ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি রক্ষার আন্দোলন। যারা এ আন্দোলনের পক্ষে নন তারা নিজেরাই নিজেদের প্রতিপক্ষ করে তুলবেন।’

সেদিন তিনি জাজের প্রসঙ্গ টেনে বলেছিলেন, ‘অনেকেই বলছেন আমি জাজ থেকে এসেছি। এই প্রতিষ্ঠানটি আমার পিতার মতো। তবে আমি কেন জাজের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছি? এটা খুবই অবাক করা এবং বিব্রতকর প্রশ্ন আমার জন্য। বাবার বিরুদ্ধে সন্তান কখনো আন্দোলন করতে পারে না। আমিই বা কেন করব। আমি এ আন্দোলনের একজন সক্রিয় কর্মী তার কারণ আমি আমার দেশ ও দেশের চলচ্চিত্রকে ভালোবাসি। এখানে আমি কাজ করে দুই বেলা ভাত খাই। জাজের হাত ধরেই আমি এখানে পা রেখেছি। জাজের কাছ থেকেই শিখেছি কাজের প্রতি, পেশার প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকতে হবে। আজ যারা আমার পেটে লাথি মারতে চাইছে আমি তো তার হয়ে সাফাই গাইতে পারি না।’

সেই আন্দোলনের পর কেটে গেছে দুই বছর। এত দিন পর বাপ্পি নিজের ভুল বুঝতে পেরেছেন। ১৯ জানুয়ারি প্রথম প্রহরে একটি ফেসবুক স্ট্যাটাসে বাপ্পি জানান তার সেই সময়ের অবস্থান ভুল ছিল। তিনি তার ভুল বুঝতে পেরে স্ট্যাটাসে জাজ মাল্টিমিডিয়ার কাছে ক্ষমাও চেয়েছেন।

১৯ জানুয়ারি বাপ্পি তার স্ট্যাটাসে বলেন, ‘দেশে সিনেমা নির্মাণ কমে এসেছে প্রায় শূন্যের কোঠায়। প্রযোজকেরা এখন ভয়ে ইনভেস্ট করছে না। এফডিসিতে নাকি সিনেমা বানানোর পরিবেশ নেই, সেখানে এখন একে অপরের পেছনে লেগে থাকে এমন মন্তব্য তাদের। অথচ ২০১৭ সালে রোজার ঈদ ‘নবাব’ ও ‘বস-২’ সিনেমা মুক্তির আগে চলচ্চিত্র পরিবার থেকে আন্দোলন শুরু হয় । সেই আন্দোলনে আমিও যোগ দিয়েছিলাম । বলা হয়েছিল, যৌথ প্রযোজনার নামে যৌথ প্রতারণা বন্ধ হলে, আমাদের দেশের শিল্পীদের কাজ বৃদ্ধি পাবে, ঘুরে দাঁড়াবে আমাদের চলচ্চিত্র, সমৃদ্ধ হবে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র। দেশের সিনেমার উন্নয়ন হবে এ কথা ভেবে যোগ দিয়েছিলাম আন্দোলনে, বিপক্ষে দাঁড়িয়েছিলাম যৌথ প্রযোজনার বিরুদ্ধে। এই জন্য যে প্রতিষ্ঠানের হাত ধরে আমি আজ বাপ্পি চৌধুরী, যে মানুষটির জন্য আমি আজ নায়ক সেই আজিজ ভাইয়ের সঙ্গে ঝগড়াও করেছি। যে মানুষটা আমার চলচিত্রের সবচেয়ে কাছের ছিল তার থেকে দূরে সরে এলাম। কিন্তু এটা করে কী পেলাম? সিনেমার অবস্থা কী উন্নত হয়েছে? সিনেমা নির্মাণ কী বেড়েছে? নতুন বছর শুরু হলো আমদানি করা বিদেশি ছবি মুক্তি দিয়ে। যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত ছবি হলেও তো আমাদের দেশের অনেক কলাকুশলী ও নায়ক নায়িকা কাজের সুযোগ পেত। কিন্তু এখন তো আমদানি করে নিয়মিত ছবি মুক্তি দেয়া হচ্ছে। যে ছবিগুলোতে আমাদের কেউ কাজের সুযোগ পাচ্ছে না। হিতে তো বিপরীতই হলো। অথচ দেশের সিনেমার উন্নয়ন হোক এটা আজিজ ভাই সব সময় চেয়েছেন। সিনেমা ডিজিটালাইজেশনের পথ বদলে দিয়েছেন। সরি আজিজ ভাই, আপনাকে ভুল বোঝার জন্য। আবারও আই অ্যাম সরি।’’

এই স্ট্যাটাসের সূত্র ধরে বাপ্পির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে দেশ রূপান্তরকে তিনি বলেন, ‘আজিজ ভাইয়ের সঙ্গে আমার মাঝে মাঝেই দেখা হয়, কিন্তু সেভাবে কথা হয় না। আর যা বলার স্ট্যাটাসেই বলেছি। আমি মনে করি এটাই তো হওয়া উচিত। যা করা উচিত আমি তাই করেছি।’

বাপ্পির স্ট্যাটাসের সূত্র ধরে জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আব্দুল আজিজের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে দেশ রূপান্তরকে আব্দুল আজিজ বলেন, ‘বাপ্পি যেহেতু ভুল বুঝতে পেরেছে ফলে আমি ওকে ক্ষমা করে দিয়েছি।’

ভবিষ্যতে আবারও বাপ্পির সঙ্গে কাজ করবেন কিনা জানতে চাইলে আব্দুল আজিজ বলেন, ‘হ্যাঁ। অবশ্যই কাজ করব।’

তিনি আরও বলেন, ‘শুধু বাপ্পি নয় আরও অনেকে আমাকে তাদের ভুল বোঝার কথা বলেছেন। পারসোনালি সরি বলেছেন। আমিও তাদের বলেছি এসব আমি মনে রাখতে  চাই না। আমিও তাদের ক্ষমা করে দিয়েছি। আমি আবার সবার সঙ্গে কাজ করতে চাই।’

আব্দুল আজিজ আরও বলেন, ‘গুলজার-জায়েদ খানদের প্ররোচনায় তারা এমনটা করেছে। কিন্তু আল্টিমেটলি তাদের স্বার্থ রক্ষা করে তাদের কোনো লাভ হয় নাই। ফলে তারা নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে তাদের অবস্থান থেকে সরে এসেছেন।

Check Also

আবারও বি ইউ শুভ’র নাটকে অপুর্ব ও মেহজাবিন

জিয়াউদ্দিন আলম- ভালোবাসা দিবসে অপুর্ব ও মেহজাবিন এর সেরা নাটক ‘ফার্স্ট লাভ’ উপহার দিয়ে আলোচনায় আসেন …