‘এই ভালোবাসার পর আর কিছু দরকার পরে না’- তানিন সুবহা

অরন্য শোয়েব।‘প্রবর্তন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন’নামে একটি অরাজনৈতিক সংগঠন সমাজের পিছিয়ে পড়া ছিন্নমূল শিশুদের নিয়ে সংগঠনটি কাজ করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল ১১ জুন (২৫ শে রমজান) রোজ সোমবার বিকেল ৪টায় মিরপুরস্থ বিলাস ভবন কমিউনিটি সেন্টারে ৩শত ছিন্নমূল শিশুদের ঈদের নতুন জামা ও ইফতার মাহফিলের আয়োজন কর। এতে প্রথান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় সংসদ সদস্য কবি কাজী রোজী (এমপি), বিশেষ অতিথি ছিলেন চিত্রনায়িকা তানিন সুবহা, প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের সভাপতি লায়ন মোঃ গনি মিয়া ও আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন ঢাকা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম।

প্রধান অতিথি সংসদ সদস্য কবি কাজী রোজী (এমপি) বলেন, ছিন্নমুল পথশিশুদের নিয়ে এমন একটি মহুৎ কাজ সমাজ ও দেশের জন্য গর্বের। আয়োজকদের ধন্যবাদ দিয়ে তিনি বলেন সমাজের আট-দশটা কাজের চেয়ে মানুষের পাশে দাঁড়াতে সবাই পায় না।যাদের প্রচেষ্টায় এসকল এতিম ও অনাথ শিশুদের মুখে হাসি ফুটিয়েছেন তাদেরকে আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা। তিনি অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি চিত্রনায়িকা তানিন সুবহার প্রসংশা করে বলেন, তানিন সুন্দর একজন মনের মেয়ে।তার সুন্দর মনের কারণে পথশিশুদের নিয়ে একমঞ্চে বসে ইফতার করেছে।যার সুন্দর মন আছে তারাই এধরেনের সামাজিক কার্যকলাপে অংশগ্রহণ করেন।আমি তানিন সুবহার জন্য দোয়া করি সে যেন দেশের নামকরা নায়িকা হয়।

চিত্রনায়িকা তানিন সুবহা বলেন, আমি ঢাকার বাহিরে শুটিংয়ে ছিলাম। যখন আমি ঢাকায় ফিরে তখন ঘড়ির কাটা রাত ১২টায়। সেসময় আমার কাছের একজন বড় ভাই (সাংবাদিক) এ বিষয়ে ফোন দিয়ে জানালে আমি এক মুহূর্ত দেরি না করে হ্যাঁ বলি। সেই সাথে আমি তাদের জন্য ইফতার ব্যবস্থা করে অনুষ্ঠানে যোগদান করি।অনুষ্ঠানে এসে মন ভরে গেছে আমার। মনে হচ্ছে ‘এই ভালোবাস্র পর আর কিছু দরকার পরে না’ আমার জীবনে। ছোট ছোট কোমলতি ছিন্নমুল শিশুদের পাশে থাকতে পেরে নিজেকে সত্যিই ভাগবতী মনে হচ্ছে। এই অনুষ্ঠানে আমাকে আমন্ত্রণ করার জন্য আয়োজকদের ধন্যবাদ জানায়। আমি সমাজের অসোহায় মানুষের পাশে সবসময় থাকতে চাই আর এই সংগঠনের যে কোন প্রয়োজনে আমি সাহায্য করবো।

‘প্রবর্তন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন’এর সায়মুম আক্তার সায়লা বলেন, আমরা সংগঠনটি ২০১৫ সাল থেকে শুরু করি। আমাদের নিজের ভলান্টিয়ার দের খরছে ঢাকায় ১শত সুবিধা বঞ্চিত পথশিদের নিয়ে সপ্তাহে চার দিন পড়াশুনা করায়।আমাদের মুল উদ্দেশ্য হচ্ছে এসকল পথশিশুদের সুন্দর আগামী গড়ে দেওয়ার প্রত্যয় নিয়ে অঙ্গীকার বদ্ধ।অনুষ্ঠানের প্রসঙ্গে জানান, কতটুকু পেরেছি জানি না, আমরা চেষ্টা করেছি তাদের মুখে হাসি ফোটাতে।

আমাদের এই ক্ষুদ্র প্রচেষ্টায় সাথী হয়েছিলো দেশ বরেন্য ব্যক্তিরা। তাদের প্রেরনা আমাদের শক্তি।

তারুন্যের উদ্দীপনায় শানিত হোক প্রতিটি সুবিধাবঞ্চিত প্রান।

Check Also

ঈদ মানেই চ্যানেলে চ্যানেলে পথিকের নাটক

মিডিয়াভুবন২৪ঃঈদ মানেই আনন্দ। এই আনন্দকে বাড়তি রূপ দিতে দেশের সকল টিভি চ্যানেল সচেষ্ট থাকে বিশেষ …