মুক্তিযুদ্ধের চেতনার জাগরণের নাটক ‘পতাকা’

এদেশের অসংখ্য টেলিভিশন নাটকে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার কথা উঠে এসেছে প্রবলভাবে। সেই ধারাবাহিকতায় নতুন প্রজন্মের মাঝে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার জাগরণ এবং নাগরিক ইট-পাথরের ব্যস্ত শহরে মুক্তিযুদ্ধ ও দেশ মাতৃকার প্রতি ভালোবাসার আকুতি কতটুকু এমন প্রশ্নকে উপজীব্য করে নির্মিত হয়েছে নাটক ‘পতাকা’। সাংবাদিক-নাট্যকার রুদ্র মাহফুজের রচনা ও এই প্রজন্মের আলোচিত নির্মাতা কাজী সাইফ আহমেদের পরিচালনায় বিজয় দিবসের বিশেষ এই নাটকটির প্রধান দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন তরুণ প্রতিভবান অভিনেতা তৌসিফ মাহবুব ও মডেল-অভিনেত্রী সাফা কবির। সম্প্রতি উত্তরা, ৩০০ ফিট, শাহবাগ সহ ঢাকার বেশ কয়েকটি লোকেশনে নাটকটির দৃশ্যায়ন সম্পন্ন হয়েছে।

নাটকটি প্রসঙ্গে তৌসিফ বলেন,‘শরাফত নামের যে চরিত্রটি আমি করেছি সে নদীভাঙা এক হতভাগ্য। কাজের সন্ধানে সে ঢাকায় এসে মৌসুমী পণ্যের হকারে পরিণত হয়। এক পর্যায়ে সে পতাকা বিক্রি শুরু করে এবং ঘটনা ক্রমে লক্ষ্য করে বিপন্ন-পরাস্ত দেশপ্রেমকে। শরাফতের মাঝে হতাশার ব্যঞ্জনা আছে, যাতনা আছে আবার সে ক্ষুদ্ধও হয় চৈতন্যহীন সমাজ ও আধুনিকতার ট্র্যাজিক উল্লাস দেখে। আমি নাট্যকারকে ধন্যবাদ দিতে চাই, কারণ তিনি খুব সহজ করে জটিল একটি বিষয়কে লিখেছেন স্বপ্ন ও আশার উজ্জীবনে এবং পরিচালক তা ক্যামরাবন্দি করেছেন তার স্বকীয় সৃজনশীলতায়।’

একই প্রসঙ্গে সাফা কবির বলেন,‘প্রথমেই বলবো, এটি গতানুগতিক কোনো গল্পের নাটক নয়। গতানুগতিক ধারা থেকে বের হয়েছি এবং নিজেকে ভাঙতে পারলাম এই প্রথম। নাটকে আমার চরিত্রের নাম মালেকা। বাসাবাড়িতে ছোটা ঝি-এর কাজ করি।  স্মৃতি আর শেকড় মানুষকে সবসময় তাড়িত করে এবং মুক্তিযুদ্ধ আমাদের মনোভূমিতে যে আশ্চর্য বিস্তার করে আছে, সেটি এ নাটকে নতুন দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে উম্মোচিত হবে বলে ধারণা করছি। নাট্যকারের বোধ ও মনন থেকে পরিচালক পরিশীলিত ছন্দে বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়েছেন এবং এভাবে নাটকটি শৈল্পিক অভিমুখতায় নতুন পথ খুঁজে পেয়েছে। বিশেষ করে পরিচালক সাইফ ভাইয়ের ইউনিট ছিল অসাধারন। সবাই ছিল খুব বেশি কো-অপারেটিভ। ’

তরুণ নির্দেশক কাজী সাইফ আহমেদ বলেন,‘মুক্তিযুদ্ধ শুধু আমাদের হৃদয়ে নিরন্তর সৃজনের বীজ রোপিতই করে দেয়নি বরং যেকোনো সৃজনশীল মানুষের জন্য নতুন চিন্তার নবীন দরজাও উম্মুক্ত করে দিয়েছে। বিশেষ করে শরাফত ও মালেকা চরিত্র দিয়ে তৌসিফ ও  সাফা গতানুগতিক ধারা থেকে বের হয়েছেন এবং নিজেদের ভাঙতে পেরেছেন।  পতাকা নাটকটিতে নাট্যকার, অভিনেতা, অভিনেত্রী প্রত্যেকেই মুনশিয়ানার পরিচয় দিয়েছেন। যান্ত্রিক জীবনে দেশকে নিয়ে কাঙ্খিত ভালোবাসাটুকু কখন যে অশ্রুতে থমকে যায় এবং মৃত্যুঞ্জয়ী শত-সহস্র বীরের যুদ্ধজয়ের স্বপ্ন অজান্তেই শৃঙ্খলিত হয়ে পরে, তা এই নাটকে দেখা যাবে। পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নতুনভাবে জাগ্রত হওয়ার উদ্দীপনাও ব্যক্ত হয়েছে।’
উল্লেখ্য, ফেক্টর থ্রি সলিউশনস্ এর ব্যানারে নির্মিত এবং রাসেল সিদ্দিকী প্রযোজিত ‘পতাকা’ নাটকটি আগামী ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসে নাগরিক টিভিতে প্রচারিত হবে।

Check Also

রেদওয়ান রনি”টাইম ট্রাভেল এক্সপেরিএন্স”

মিডিয়া ভূবন২৪- দর্শক একই সময়ে পর্দায় ৭১ এর বিজয়  ও ১৮ সালের সাফল্যের গল্প দেখবে একই …